1. nongartv@gmail.com : Nongartv :
  2. suhagranalive@gmail.com : Suhag Rana : Suhag Rana
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০০ পূর্বাহ্ন

পুলিশ ফাঁড়িতে রায়হান হত্যার চার্জশিট আজ: অজানা ‘শংকায়’ মা

নিজস্ব প্রতিবেদক:
  • আপডেটের সময় মঙ্গলবার, ৪ মে, ২০২১

সাত মাস পূর্ণ হতে চলেছে সিলেট মহানগরীর বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে পুলিশী নির্যাতনে নিহত যুবক রায়হান আহমদ হত্যার। দীর্ঘ তদন্তের পর আলোচিত এ অভিযোগপত্র বুধবার আদালতে দাখিল করবে তদন্ত সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইন্সভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

অভিযোগপত্রে বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়ির তৎকালীন ইনচার্জ (আইসি) এসআই আকবর হোসেন ভুঁইয়াকে প্রধান আসামী করে ৬ জনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পিবিআই সিলেটের পুলিশ সুপার মো. খালেদুজ্জামান। তিনি জানান, অভিযোগপত্রটি যাতে ক্রুটিমুক্ত থাকে এজন্য সময় নিয়ে তদন্ত শেষে আজ বুধবার দুপুরে আদালতে জমা দেওয়া হবে।

এদিকে, চার্জশিট জমা দেয়ার সংবাদে অনেকটা আশান্বিত হলেও অজানা শংকায় রয়েছেন নিহত রায়হানের মা সালমা বেগম। তিনি বলেন, এতো দিন পর হলেও পিবিআই চার্জশিট দিচ্ছে শুনে ভালো লাগছে। কিন্তু চার্জশিট দিলে কি হবে, চার্জশিটে কি দিবে সেটি আসল বিষয়। চার্জশিট দেওয়া পর বুঝা যাবে কি উল্লেখ করা হয়েছে। যদি আমরা সন্তুষ্ট না হই তাহলে আইনজীবীদের পরামর্শে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

সালমা বেগম ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, রায়হানের নির্যাতনের সিসিটিভির ফুটেজ ধারণ করা হার্ডডিস্ক গায়েব করে লাপাত্তা হওয়া কোম্পানীগঞ্জের বাসিন্দা আব্দুল্লাহ আল নোমানকে চার্জশিট দেওয়ার আগে গ্রেফতার করা হয়নি। অথচ অন্য আসামীদের গ্রেফতার করতে পারলেও নোমানকে গ্রেফতার করতে পারলো না। এজন্য উদাসীনতা কেন এটা আমার বোধগম্য হচ্ছে না।

জানা যায়, গত বছরের ১০ অক্টোবর গভীর রাতে সিলেট নগরীর আখালিয়ার এলাকার বাসিন্দা রায়হান আহমদকে কাষ্টঘর এলাকা থেকে ধরে নিয়ে বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতন করেন ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আকবর হোসেন ভুঁঁইয়াসহ পুলিশ সদস্যরা। পরে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। রায়হান হত্যার পরদিন তার স্ত্রী তাহমিনা আক্তার তান্নী বাদী হয়ে কোতোয়ালী মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলার প্রধান অভিযুক্ত বন্দরবাজার ফাঁড়ির এসআই আকবর হোসেন ভুঁইয়া, এসআই হাসান উদ্দিন, এএসআই আশেক-ই এলাহী, কনস্টেবল টিটু চন্দ্র দাস ও হারুনুর রশীদকে গ্রেফতর করেছে পুলিশ।

এরপর তদন্তের প্রেক্ষিতে বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়ির ৯ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করে প্রশাসন। এখন পর্যন্ত ৫ পুলিশ সদস্যসহ ৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তারা হলেন, বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়ির তৎকালীন ইনচার্জ এসআই আকবর হোসেন ভ‚ঁইয়া, টু-আইসি এসআই হাসান আলী, এএসআই আশেক ই এলাহী, কনস্টেবল হারুনুর রশিদ, কনস্টেবল টিটু চন্দ্র দাস ও ওইদিন ছিনতাইয়ের অভিযোগকারী একজন। তারা সকলেই এখন কারাগারে আছেন। এছাড়া বরখাস্ত অবস্থায় এসআই আব্দুল বাতেন ভুঁঁইয়া, এএসআই কুতুব আলী ও প্রত্যাহার অবস্থায় কনস্টেবল মো. সজীব হোসেনকে পুলিশ লাইন্সে সংযুক্ত করা হয়েছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

© 2020 Nongartv.com . Design & Development by PAPRHI
Theme Customization By Freelancer Zone
shares